Remember the dead and fight for the living on International Workers’ Memorial Day, April 28, 2022

On April 28, we will commemorate International Workers’ Memorial Day. This is a very important day for workers to remember the tragic loss of life, the severe injury and illness of workers as a result of work. It is a day to remember the dead and to fight for the living. While we reflect on this terrible loss of life, and of injury and illness and disease arising from work, it must motivate us to commit to fight for the right to a safe workplace. It is not just about workers’ behaviour, and safety training, it is about the obligation of all employers to guarantee a safe workplace.

And that safe workplace is a right of all workers, regardless of their background, regardless of their gender, their ethnicity, their religion, their place of origin, regardless of their employment status, regardless of the fact of whether they’re regular or casual, or temporary, whether they’re from labor hire, or whether they’re an apprentice or trainee. Any worker that enters the workplace for the purpose of work, engages in work in any form, has a right to perform that work and to return home safely to her family without injury, and without illness. That is a fundamental right, and we have to fight for that: for the right to a safe workplace.

If this pandemic has taught us anything, it’s that our health, the health of our community, the health of our families is so important. And we need the systems and protections in place to ensure that health, and those systems and protections must exist in the workplace too. It’s not about workers’ behavior, and how much health and safety training there is. It is about the nature of work, the arrangement of work and the pressure that workers face in doing that work.

We have to ask ourselves on this day on April 28. Why is it that so much about work is designed for production and for services, for products, for results? Very little about work is designed for people; for human beings. If we’re not using hazardous, toxic, dangerous chemicals, then we don’t need the protective equipment. The focus is always on whether that personal protective equipment is available, provided and accessible and whether workers are trained to use it. The real question is, why is it necessary? A safe workplace is a workplace in which employers fulfill their obligation to provide that safety and where governments fulfill their obligation to guarantee that all industries are safe for workers. That obligation requires that we minimize as much as possible, the necessity of personal protective equipment. Personal protective equipment, gloves, masks, protection from hazardous chemicals from heat from cold, all of this is a last resort.

What we need to focus on is how work must change the speed of work, the intensity of work, the speed of production lines, the cold, the heat, the exposure, the long working hours, the tiredness, the exhaustion that is costing lives. All of that has to change, not workers’ attitudes and behavior. It’s very difficult to have the right attitude and behavior if you’re working 16 hours and you’re exhausted. It’s very difficult to have the right attitude and behavior if you’re on piece-rate wages or in insecure jobs, fearing about when when your next paycheck comes, fearing about paying your bills.

A safe workplace requires secure employment, sustainable employment. And it’s a safe workplace, not the behavior of individual people alone. Too much of the focus in recent years has been on the individual behavior of workers, which is not about skilling, not capacity, not ability, but blame. Instead of that narrative of blame, let’s step back in remembering the dead and fighting for the living. To prevent these industrial injuries and illnesses, diseases and tragic loss of life. We must fight for the right to a safe workplace that all workers regardless of who they are, and what they do, are entitled to. This is a fundamental human right. And that’s why on April 28, we want to bring this message to all of our members across the Asia Pacific region and to ensure that all of our unions take up this fight in the next weeks, months and years to come. It is so essential for our trade union movement to make this a priority. Yes – job security, yes – better wages, yes – livelihoods, but at the end of the day, the right to come to work, to perform your work and to come home safely to your family must be a fundamental human right. Let’s on April 28, remember the dead and fight for living. Thank you.

“living with COVID” and the realities of endemicity

“living with COVID” and the realities of endemicity

The “living with COVID” policies that have led to the lifting of restrictions are often based on a misunderstanding of “endemicity”, or what endemic means.

We should understand that “living with COVID” does not mean SARS-CoV-2 is no longer serious. It is a policy decision of governments based on politics and economics (not science) that have decided that the current level of illness, hospitalization and death is acceptable in relation to the economic and social benefits of lifting all restrictions.

In countries where there is a good, well-funded, hospital system free to all, and a strong health care system, “living with COVID” might be manageable. We do not live in such countries.

Continue reading on our COVID-19 blog

More union leaders arrested as Cambodian government violates human rights to protect NagaWorld profits

More union leaders arrested as Cambodian government violates human rights to protect NagaWorld profits

At 2:50PM on Wednesday, February 9, three union leaders wrongfully detained on Saturday under COVID-19 laws were charged and sent to prison for pre-trial detention. Chaup Channath, Sao Sambath and Seng Vannarith were among several striking union members detained on February 5 by authorities under COVID-19 laws. However, because of their role as strike leaders they were charged and sent to prison on February 9, as the government desperately tries break the 53 day strike and cover up the human rights violations at NagaWorld that led to strike action.

The detention of Chaup Channath, Sao Sambath and Seng Vannarith adds to the eight LRSU leaders already imprisoned a month ago and awaiting sentencing: Chhim Sithar (Union President), Chhim Sokhorn (Union Secretary), Kleang Soben (Union Negotiation Committee), Sun Sreypich (Union Negotiation Committee), Hai Sopheap (Union Negotiation Committee), Ry Sovandy (Union Negotiation Committee),Touch Sereymeas (Union Activist), and Sok Narith (Union Advisor).

The actions of the Cambodian government violate several international human rights conventions including the International Covenant on Civil and Political Rights and ILO Convention No.87 and Convention No. 98 on freedom of association and the right to organize and collective bargaining. This compounds the systematic violations of ILO Conventions No.87 and No.98 by NagaWorld management over the past year, when it imposed mass forced redundancies without negotiations with the union, LRSU, and selectively terminated the union leadership and active members. Ministry of Labour officials then colluded with NagaWorld management to prevent effective mediation by the Arbitration Council, forcing LRSU members to vote for strike action.

Instead of resolving this labour dispute during the one month cooling off period in November 2021, management refused negotiations and forced through the unfair termination of union leaders and members. Once strike action began on December 18, 2021, government authorities launched an attack on the union, raiding the LRSU office and arresting leaders and members.

In a further attack on the right to freedom of association, the right to strike and the right to freedom of assembly, new arrest warrants were issued for four women union leaders on February 6, 2022.

ACT NOW! Please support the call to release jailed union leaders!

 

Striking workers arrested using COVID-19 laws, a year after authorities colluded with NagaWorld to cover up COVID-19 outbreaks

Striking workers arrested using COVID-19 laws, a year after authorities colluded with NagaWorld to cover up COVID-19 outbreaks

In a blatant example of the injustice NagaWorld workers are fighting against, authorities arrested at least six striking union members under COVID-19 laws on Saturday, February 5. In contrast, no action was against NagaWorld management for covering up two COVID-19 outbreaks caused by casino customers (known to  have tested positive) in February last year. In fact, the mass termination of union leaders and members – which is the reason for the current strike – occurred shortly after the union demanded the company do more to protect workers’ health and ensure COVID-19 safety.

On Friday, February 4, the Ministry of Health issued a letter declaring that a pregnant worker who went for a check-up tested positive for COVID-19. Without informing her directly the letter was issued publicly, disclosing her identity. She immediately responded on social media saying that due to her pregnancy she had not visited the picket line for the past 10 days. Ignoring this, the Ministry of Health called on all workers on the strike picket to have COVID-19 tests within three days.

The union, LRSU, agreed to comply with the instruction from the Ministry of Health and arranged for striking workers to go for COVID-19 tests in small groups for their own safety and security. Despite this effort by the union, local authorities moved to arrest striking union members on Saturday, February 5  – just 24 hours after the Ministry of Health announced that the workers had three days to be tested. To instill fear and disrupt the strike, authorities arrested six striking union members under COVID-19 regulations. In an attempt to create disorder and to provoke a confrontation with police,  the picket line was surrounded at 9:50PM on Saturday to prevent workers from leaving and the street lights were turned off. Union members maintained their peaceful demonstration and refused to be provoked.

Supporters of the union and human rights defenders condemned the government’s actions as hypocritical. In November 2021 the government of Cambodia declared a full reopening due to the successful vaccination rate (98.5%) and the country was also opened to fully vaccinated visitors with no quarantine required. Over the past three months the Ministry of Health has not issued any statement calling for contact tracing and testing. The public statements issued against the striking NagaWorld workers are clearly politically motivated.

The actions against striking union members are in stark contrast to the government response to COVID-19 outbreaks at NagaWorld in February last year. One outbreak was linked to guests who had tested positive but allowed to enter the Naga 2 casino complex on February 25, 2021. While police removed the guests who had tested positive, workers were locked in the casino and forced to keep working. The authorities took no action against the company and more outbreaks occurred.

On March 1, 2021, LRSU wrote to management urgently requested testing for the casino to be closed for cleaning and for members to be tested. The union made five demands:

1. The management to immediately apply comprehensive safety protocols and measures in accordance with WHO guidelines to limit the community spread of COVID-19 in the hotel casino complex [Naga 1 and Naga 2] and ensure the safety of all staffs.

2. All workers of NagaWorld should remain at home without any punishment and on fully salary until it is declared safe.

3. All places in both building must do deep cleaning and disinfecting from specialist group.

4. Stop putting pressure on workers at all forms and all workers must have covid-19 test and confirm negative before return to workplace.

5. Stop suppressing information and to have greater transparency in tackling the community spread of COVID-19

Management refused and health authorities did nothing, allowing the crisis to escalate to the point where the integrated hotel casino complex was forced to close temporarily. The next step was to terminate en masse the union leaders and members who raised health and safety concerns.

Only now – 50 days into a strike that is embarrassing both NagaWorld and the government – the COVID-19 testing and safety measures the union called for in March last year are being used politically to disrupt and disband the strike.

See Naga World Hotel Casino ignored union calls for stricter COVID-19 safety measures. Now hundreds of workers are paying the price – June 3, 2021

 

defending NR36 in Brazil is an international struggle with global consequences

defending NR36 in Brazil is an international struggle with global consequences

As we gradually emerge from this devastating global pandemic, there can be no doubt that protecting public health is an absolute priority. This not only means building better, more accessible and affordable public health care systems, but also dramatically improving occupational health and safety regulations to ensure safer workplaces for workers. This is precisely why the urgent call for recognition of ILO Convention No.155 on Occupational Safety and Health as a fundamental right has gained so much support in 2022.

For essential food industry workers working throughout the pandemic, the right to a safe workplace became absolutely vital. Meat and poultry industry workers in particular were understood to be at high risk of occupational exposure to COVID-19. Studies also showed that faster line speeds in poultry plants increased COVID-19 risk. Added to this is the fact that the coronavirus SARS-CoV-2 that causes the disease COVID-19 is a zoonotic disease (a disease that spreads between animals and humans) and greater efforts are needed to prevent the emergence of new zoonotic diseases. As the UN Environment Program (UNEP) pointed out in 2020, we must take several comprehensive measures to protect the environment and transform our food systems to prevent the next pandemic. This is even more urgently needed in industries where the risks of exposure to animal diseases – including slaughterhouses in the meat and poultry industry – are high.

All this means that globally we are at a critical turning point in which public health, and health and safety at work, must be given priority. Yet it is at precisely this juncture that Brazil is heading in the wrong direction. The government is moving to amend and thereby erode the protection of workers’ health and safety in the meat and poultry industry. Specifically, Regulatory Norm 36 (NR36) Health and Safety at Work in Slaughter Houses and Processing Meat and Derivatives is under attack.

NR36 was adopted in 2013 after 15 years of campaigning to improve the working conditions of meat and poultry workers and ensure their right to a safe workplace. NR36 includes everything from the length and timing of rest breaks, standing and sitting while working, work rotation, limiting exposure to cold temperatures, and the use of appropriate and adequate Personal Protective Equipment (PPE) that foremost protects workers’ health, not just the product. There are also provisions on biological hazards and biosecurity measures that are even more relevant today with the resurgence of Highly Pathogenic Avian Influenza (HPAI) – including outbreaks of H5N1 – and a surge in Antimicrobial Resistance (AMR).

The objective of NR36 is: “… to permanently guarantee safety, health and quality of life at work.” Few would doubt the importance of this objective in 2022. Yet the meat and poultry conglomerates in Brazil want the government to erode NR36, reversing this objective. This means not guaranteeing safety, health and quality of life at work, and setting lower standards at a time when we are striving to protect human health. It means taking away the right to safety and health on the eve of its global recognition as a fundamental right.

As with our urgent efforts to prevent a climate catastrophe, reverse biodiversity loss and stop new pandemics, we must follow the science. Science must drive our actions, not politics. Yet the attack on NR36 is precisely that – a political assault on health and safety in the meat and poultry industry that defies science. Since the introduction of NR36 in 2013, dozens of studies have shown the substantial improvement in human health and hygiene and the quality of life of meat and poultry workers.[1]

Studies comparing work in poultry processing factories in Brazil before and after the introduction of NR36 demonstrate lower occupational risk and reduced incidence of long-term injury and illness. The importance of NR36 requirements for PPE, work rotation and rest breaks is cited again and again in international studies as examples of the qualitative improvement in human health.[2]

Science tells us that NR36 is working. Politics tells us that the multi-billion dollar meat and poultry conglomerates can squeeze some more profit if workers stand longer, reach higher, have shorter breaks, use cheaper PPE, and suffer in cold temperatures.

The global consequences of the reversal of NR36 cannot be underestimated. Brazil is the world’s largest exporter of beef (23% of the total) and the second largest producer of chicken meat in the world. Chicken meat production grew to 14.35 million tons in 2021 and saw a 51% jump in exports. Meanwhile Brazil-based JBS is the world’s largest chicken producer and processor, the world’s largest protein supplier, and the second-largest global food company. So a reversal and erosion of health and safety standards in the meat and poultry industry is a global reversal.

Across the Asia-Pacific region and internationally we must protest to the government of Brazil and express our outrage. We must defend NR36 as a standard that exemplifies our fight to recognize ILO Convention No.155 as a fundamental right. We must at this critical historical juncture turn towards the protection of public health, workers’ health and the environment – not away from it. Yes we must also challenge and transform the the meat and poultry industry as a major contributor to climate change, biodiversity loss and as a key “disease driver”. But we can only do so through the organized strength of meat and poultry workers and their communities. We can move from safety to the environment and ensure a just transition. But such a transition is made impossible if the meat and poultry industry is cast backwards into a past of brutal, unsafe working conditions. There is no hope in that. No justice. And therefore no possibility of a just transition.

Hidayat Greenfield, IUF Asia/Pacific Regional Secretary

NOTES

[1] Diogo Reis, Antonio Moro, Elaine Ramos, Pedro Reis, “Upper Limbs Exposure to Biomechanical Overload: Occupational Risk Assessment in a Poultry Slaughterhouse”, in Ravindra S. Goonetilleke and Waldemar Karwowski (eds) Advances in Physical Ergonomics & Human Factors: Proceedings of the AHFE 2018 International Conference on Physical Ergonomics & Human Factors, July 21-25, 2018, pp.275-282. See also Dias NF, Tirloni AS, Cunha Dos Reis D, Moro ARP. “The effect of different work-rest schedules on ergonomic risk in poultry slaughterhouse workers”. Work. 2021;69(1), pp.215-223.

[2] See the papers published in Nancy L. Black, W. Patrick Neuman, Ian Noy (eds), Proceedings of the 21st Congress of the International Ergonomics Association (IEA 2021), Volume V: Methods & Approaches. Springer, 2022.

Click HERE to send an urgent message to the Government.

“শ্রম পণ্য নয়।” কিন্তু পিস-রেট মজুরির চাপ, কোটা এবং ভয় শ্রমকে পণ্য হিসাবে নিশ্চিত করে।

“শ্রম পণ্য নয়।” কিন্তু পিস-রেট মজুরির চাপ, কোটা এবং ভয় শ্রমকে পণ্য হিসাবে নিশ্চিত করে।

১০ মে ১৯৪৪ তারিখে গৃহীত ফিলাডেলফিয়া ঘোষণা, ১৯১৯ সালে প্রতিষ্ঠিত আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) এর লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যগুলিকে পুনর্নিশ্চিত ও সংজ্ঞায়িত করে। প্রথম অনুচ্ছেদটি ঘোষণা করে:

(ক) শ্রম পণ্য নয়;

ঘোষণাটি একটি গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক সন্ধিক্ষণে এসেছিল, স্বাধীনতার জন্য সংগ্রামরত অনেক দেশের জন্য উপনিবেশবাদের অবসানের সূচনাকে উদ্যাপন করে। অনেক সদ্য স্বাধীন দেশে ভাষা, শিক্ষা, আইন, সীমানা, জমির মালিকানা, একইসাথে শাসন ব্যবস্থার কাঠামোতে ঔপনিবেশিকতার অবশিষ্টাংশ অব্যাহত ছিল। বর্ণবাদ, বৈষম্য, দাসত্ব, এবং বন্ডেড লেবার বা শ্রম দাসত্বের পাশাপাশি ব্যাপক দুর্নীতির মতো বিভিন্ন ধরণের  ঔপনিবেশিক অনুশীলনগুলি অব্যাহত ছিল। (১)

অন্যতম আরো একটি চর্চা যার বৃদ্ধি অব্যাহত ছিল তা হল পিস-রেট মজুরি এবং কোটার ব্যবস্থা, যা শ্রমিকদের আরও বেশি উৎপাদন করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে বাধ্য করার জন্য ডিজাইন বা তৈরী করা হয়েছিল। আধুনিক শিল্পে পুরষ্কার এবং প্রণোদনার ব্যবস্থা হিসাবে বোঝা যায় – এবং বর্তমান গিগ অর্থনীতি (মুক্তবাজার অর্থনীতি) এবং প্রযুক্তি জগতে সুযোগ এবং স্ব-নিযুক্ত বিশেষাধিকার হিসাবে – পিস-রেট মজুরি ব্যবস্থা শ্রম শৃঙ্খলার মধ্যে নিহিত। এটা ডিজাইন করা হয়েছে শ্রমিকদের বাধ্য করার জন্য; শ্রমিকদের কাছ থেকে আরো শ্রম আহরণ করতে।

এই ব্যবস্থার কার্যকারিতা হল এটা মনে হয় যেন শ্রমিকরা নিজেদের থেকে আরও বেশি করে আহরণের জন্য কঠোর পরিশ্রম করছে। তাই চিন্তাভাবনা চলছে, শ্রমিকরা লক্ষ্য এবং কোটা পূরণের জন্য নিজেদেরকে ঠেলে দিচ্ছে, পিস-রেট মজুরি যা উৎপাদন করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে তার আরও বেশি করে পিস তৈরি করে। এটি করার বাধ্যবাধকতা নিয়োগকর্তাদের দ্বারা ন্যায্যতা হিসাবে মানুষের অন্তর্নিহিত প্রতিযোগিতামূলকতাকে লালন করা হয়, প্রায়শই এটিকে ন্যায্যতা দেওয়ার জন্য ডারউইনের “যোগ্যতমের বেঁচে থাকার” অপব্যবহার করে। (২)

লক্ষ লক্ষ শ্রমিকের জন্য এই বাধ্যবাধকতা – এই নিরলস চাপ – পরিবর্তন হয়নি। পিস-রেট মজুরি এবং কোটা দ্বারা প্রয়োগ করা চাপ প্রতিযোগিতা করার অভ্যন্তরীণ আকাঙ্খা থেকে নয়, শুধুমাত্র বেঁচে থাকার জন্য। এটি ঘটে কারণ শ্রমিক এবং তাদের পরিবারগুলি একটি নিশ্চিত জীবন ধারনের জন্য পর্যাপ্ত মজুরি এবং ভালো স্বাস্থ্য, শিক্ষা, আবাসন এবং খাদ্য ও পুষ্টি এবং একটি উন্নত মানের জীবনযাত্রা নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় সামাজিক সুরক্ষা উভয়ই থেকে বঞ্চিত। যেমনটি আমরা অন্যত্র ব্যাখ্যা করেছি, পিস-রেট মজুরি এবং কোটা শিশু শ্রমের মূল চালিকাশক্তি। পিস-রেট মজুরি এবং কোটা দ্বারা সৃষ্ট চাপ শ্রমিকদের স্বাস্থ্যের উপর অত্যন্ত ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে।

পিস-রেট, কোটা বা টার্গেট এর চাপে শ্রমিকরা তাদের শারীরিক সীমাবদ্ধতার উর্দ্ধে কাজ করে। অত্যাধিক কাজের চাপ এবং বিশ্রাম বা খাবার ছাড়া দীর্ঘ কর্মঘণ্টা বাগানে এবং খামারের শ্রমিক এবং মাংস শিল্পের শ্রমিকদের জন্য যেমন সাধারণ ঘটনা, তেমনি এটি বিশ্বজুড়ে বিলাসবহুল হোটেল এবং ফাস্ট ফুড চেইনের শ্রমিকদের জন্যও। কোটা, লক্ষ্যমাত্রা (টার্গেট) এবং পিস-রেট শ্রমিকদের শারীরিকভাবে যত সময় কাজ করতে সক্ষম তার চেয়ে বেশি সময় কাজ করতে চালিত করে। তাদের মস্তিষ্ক এবং স্নায়ুতন্ত্র তাদের কাজ বন্ধ করে বিশ্রাম নিতে বলে। তাদের শরীর বারবার সংকেত পাঠায় (অর্থাৎ ব্যথা)। কোটা তাদের বলে এই সব কিছু উপেক্ষা করে কাজ চালিয়ে যেতে। (৩)

কোটা পূরণ বা পিস-রেটের মাধ্যমে পর্যাপ্ত মজুরি অর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় সময়টি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। এটি এতই গুরুত্বপূর্ণ যে শ্রমিকদের অবশ্যই বিশ্রামের বিরতি, খাবার বিরতি এবং টয়লেট বিরতি ত্যাগ করতে হয় এবং নিজেদেরকে তাদের শারীরিক সীমার বাইরে কাজের মধ্যে ঠেলে দিতে হয়। এমনকি, সময় না হারানোর এবং তাদের লক্ষ্যে পৌঁছানোর প্রয়াসে, শ্রমিকরা  তাদের স্বাস্থ্য এবং জীবনের ঝুঁকি বাড়িয়ে পেশাগত স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিত্যাগ করতে বাধ্য হয়। পিস-রেট বা কোটার চাপের মধ্যে, শ্রমিকরা ব্যক্তিগত সুরক্ষামূলক সরঞ্জাম পরিধান করা বন্ধ করতে পারে না বা সাবধানে সুরক্ষা নির্দেশাবলী অনুসরণ করতে পারে না কারণ তারা সেই সময়ে আয় হারাচ্ছে। সেই আয়ের প্রয়োজন যত বেশি, ঝুঁকিও তত বেশি।

নিয়োগকর্তারা পিস-রেট এবং কোটার প্রভাব উপেক্ষা করেন এবং এর পরিবর্তে অনিরাপদভাবে কাজ করার জন্য শ্রমিকদের দোষারোপ করেন। যৌথ দরকষাকষির মাধ্যমে জীবনযাপনের জন্য শোভন মজুরির নিশ্চয়তা দেওয়ার পরিবর্তে এবং আট ঘন্টার মধ্যে নিরাপদে কাজ করার জন্য কাজের চাপ পুনরায় ডিজাইন করার পরিবর্তে, নিয়োগকর্তারা সব ধরণের প্রশিক্ষণ … এবং সকল ধরণের শাস্তি প্রবর্তন করে। এটি একটি গভীর বিরক্তিকর বিড়ম্বনার বিষয় যে এমনকি বিশ্বের বড় বড় কোম্পানিগুলোও পিস-রেট এবং কোটার চাপে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা শর্টকাট করতে বাধ্য করে তারপর এই শর্টকাটগুলির জন্য শাস্তির জটিল ব্যবস্থা চালু করে।

এতে কোন সন্দেহ নেই যেহেতু জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে তাপমাত্রা বৃদ্ধি হচ্ছে, অতিরিক্ত তাপের ফলে শারীরবৃত্তীয় চাপ (হিট স্ট্রেস) বা তাপ সম্পর্কিত শারীরিক অবসাদ (হিট ইগজোশন) হওয়া এবং হাইপারথার্মিয়া হওয়ার অধিকতর ঝুঁকি থাকবে (৪)। শ্রমিকরা যদি বিশ্রামের বিরতির জন্য পানি পান করার জন্য, ছায়া খুঁজতে এবং বিশ্রামের জন্য এখনই সময় বের করতে না পারে, তাহলে আগামী দুই দশকে কেমন হবে তা কল্পনা করুন। এই পরিস্থিতিতে, পিস-রেট এবং কোটার চাপ আরও অনেক শ্রমিককে হত্যা করবে।

শেষ পর্যন্ত এটি ভয় সম্পর্কিত। পর্যাপ্ত উপার্জন না করার ভয় বা তাদের চাকরি হারানোর ভয়ই বেশিরভাগ শ্রমিককে বাধ্য করে যারা পিস-রেট মজুরি এবং কোটার উপর নির্ভরশীল। দোষী হওয়ার, “দলকে হতাশ করার” ভয়ও রয়েছে, যা উল্লেখযোগ্য মানসিক চাপ তৈরি করে। প্রকৃতপক্ষে, আমার দেখা অনেক যুব শ্রমিকদের জন্য, পর্যাপ্ত পরিশ্রম না করার জন্য বা দলকে হতাশ করার জন্য দোষী হওয়ার ভয় তাদের চাকরি হারানোর ভয়কে ছাড়িয়ে যায়। তবুও অনেক নিয়োগকর্তার কাছে মনে হয় যে এই ভয় তাদের আধুনিক কর্মসংস্থান অনুশীলনের মূলভিত্তি।

ফিলাডেলফিয়া ঘোষণার ৭৭ বছর পরও কেন আমরা যথেষ্ট অগ্রগতি করতে পারি নাই তা নিয়ে প্রশ্ন তোলা উচিত। শ্রম অনেকটাই পণ্য এবং এটিকে টিকিয়ে রাখার অন্যতম কারণ হল পিস-রেট মজুরি ব্যবস্থা, কোটা এবং লক্ষ্যমাত্রার (টার্গেট) চাপ। এটি এমন চাপ যা ভয় এবং জীবিকার জন্য শোভন মজুরি এবং সামাজিক সুরক্ষার না থাকার উপর নির্ভর করে।

এই ভয় কাটিয়ে ওঠা এবং জীবিকার জন্য শোভন মজুরি এবং সামাজিক সুরক্ষার অনুপস্থিতি আসলে ১০ মে ১৯৪৪-এ ফিলাডেলফিয়ার ঘোষণায় ঘোষিত দ্বিতীয় নীতির উপর নির্ভর করে:

(খ) টেকসই অগ্রগতির জন্য মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং সংগঠনের স্বাধীনতা অপরিহার্য;

এখনই অগ্রগতি শুরু করার সময়।

ডক্টর মুহাম্মদ হিদায়াত গ্রীনফিল্ড, আইইউএফ এশিয়া/প্যাসিফিক রিজিওনাল সেক্রেটারি

আন্তর্জাতিক শ্রমিক স্মৃতি দিবসে ফিলিপাইনে হোটেল হাউসকিপিং শ্রমিকদের বিক্ষোভ “রুম কোটা হত্যা করে !”, ২৮ এপ্রিল ২০১৮

টিকা

১। ব্যাপক দুর্নীতি (গ্রান্ড করাপশন) হল সরকারের সর্বোচ্চ স্তরের দুর্নীতি এবং/অথবা সরকারি অফিসে দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের মধ্যে দুর্নীতি যা  জনগণ বা একটি নির্দিষ্ট সামাজিক গোষ্ঠীর মৌলিক অধিকারকে ক্ষুন্ন করে। উদাহরণস্বরূপ ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের ব্যাপক দুর্নীতির (গ্রান্ড করাপশন) আইনি সংজ্ঞা দেখুন।

২। যোগ্যতমের বেঁচে থাকার ধারণাটি একটি নির্দিষ্ট প্রাকৃতিক পরিবেশে প্রজননের একটি জৈবিক ধারণাকে বোঝায়। “ফিটনেস” জেনেটিক বৈচিত্রের একটি নির্দিষ্ট শ্রেণীর মধ্যে প্রজনন আউটপুটের হারকে বোঝায়। তাই ডারউইন উল্লেখ করছিলেন কীভাবে কিছু জীবন্ত প্রাণী অন্যদের তুলনায় তাৎক্ষণিক, স্থানীয় পরিবেশের জন্য আরও ভালভাবে ডিজাইন করা হয় এবং কীভাবে তারা মানিয়ে নেয়। এর সাথে প্রতিযোগিতার কোনো সম্পর্ক নেই। যেমনটি আজ ব্যবহার করা হয়, যোগ্যতমের বেঁচে থাকা অন্যদের প্রতি অন্যায্য বা অমানবিক আচরণের জন্য একটি অজুহাত, কেন তারা পিছিয়ে আছে তা ন্যায্যতা দেয়। স্পষ্টতই জীববিজ্ঞানীরা ১৮৬৯ সাল থেকে এগিয়ে গেছেন এবং বৈজ্ঞানিক চিন্তাধারা মৌলিকভাবে পরিবর্তিত হয়েছে। কর্পোরেট চিন্তা পরিবর্তিত হয় নাই।

৩। শ্রমিকদের জন্য বিভিন্ন ধরনের “ ব্যথানাশক” প্রদান বা উৎসাহিত করা বিভিন্ন শিল্পে নিয়োগকর্তাদের জন্য একটি সাধারণ অভ্যাস। এটি ঔপনিবেশিক সময়েও ছিল যখন কাজের শাসনের অংশ হিসাবে মাদক ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হত। এটি প্রায়শই ধরনের অর্থপ্রদান করে এবং মাদকের প্রতি আসক্তি ঋণ এবং শ্রম দাসত্বের দিকে পরিচালিত করে। পোল্ট্রি প্রক্রিয়াকরণ এবং সামুদ্রিক খাবার প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পে বর্তমানে আজ ব্যথানাশকদের ব্যবহার ব্যাপক, উদাহরণস্বরূপ, যেখানে কারখানার ডাক্তার বা নার্সদের শুধুমাত্র ব্যথানাশক ওষুধ দেওয়ার বা প্রদান করার অনুমতি দেওয়া হয় এবং শ্রমিকদের অবশ্যই কাজ চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিতে হয়। ব্যথানাশক অবশ্যই কেবল সেই সংকেতগুলিকে বাধাগ্রস্থ করে যা শরীর আমাদেরকে কাজ থামাতে এবং বিশ্রামের জন্য পাঠাচ্ছে। অবশ্যই কাজ চালিয়ে যাওয়ার বাধ্যবাধকতা পিস-রেট এবং কোটা পদ্ধতি থেকেই আসে।

৪। হাইপারথার্মিয়া বলতে বিপজ্জনকভাবে শরীরের উচ্চ তাপমাত্রাকে বোঝায় যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য হুমকি স্বরূপ।